প্রতিবেশীর সাথে ব্যবহার – আল আদা্বুল মুফরাদ- ইমাম বুখারী (রহ)

আল আদাবুল মুফরাদ 

ইমাম বুখারী (রহ)

প্রতিবেশীর সাথে ব্যবহার

55- باب الوصاة بالجار

অনুচ্ছেদঃ৫৫ প্রতিবেশীর ব্যাপারে উপদেশ

101 – عَنْ عَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: (مَا زَالَ جِبْرِيلُ – صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ – يُوصِينِي بِالْجَارِ حتى ظننت أنه سَيورِّثُهُ) .

১০১.হযরত আয়িশা (রা) রাসূলুল্লাহ (সা) থেকে বর্ণনা করেন। রাসূলুল্লাহ (সা) ইরশাদ করেন- জিবরাইল (আ) আমাকে প্রতিবেশীর ব্যাপারে বারংবার অসীয়ত করতে থাকেন। এমনকি আমার ধারণা হয় যে, শীঘ্রই তিনি প্রতিবেশীকে ওয়ারিস করে দিবেন।-সহিহ

102 – عن أبى شريح الخزاعي – رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ – عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: (مَنْ كَانَ يُؤْمِنُ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الْآخِرِ فَلْيُحْسِنْ إِلَى جَارِهِ وَمَنْ كَانَ يُؤْمِنُ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الْآخِرِ فَلْيُكْرِمْ ضَيْفَهُ وَمَنْ كَانَ يُؤْمِنُ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الْآخِرِ فَلْيَقُلْ خَيْرًا أو ليصمت)

১০২. হযরত আবূ শুরায়হ আল-খুযাঈ (রা) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সা) ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি আল্লাহ ও কিয়ামতের দিনের প্রতি ঈমান রাখে, সে যেন তার প্রতিবেশীর সাথে সদাচরণ করে। যে ব্যক্তি আল্লাহ ও কিয়ামতের দিনের প্রতি ঈমান রাখে, সে যেন তার মেহমানকে সমাদর করে। আর যে ব্যক্তি আল্লাহ ও কিয়ামতের দিনের প্রতি ঈমান রাখে, সে যেন ভাল কথা বলে, অন্যথায় নীরব থাকে।– সহিহ

56- باب حق الجار

অনুচ্ছেদঃ৫৬ প্রতিবেশীর অধিকার

103 – عن المقداد بن الأسود – رضي الله عنه – قال: سَأَلَ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَصْحَابَهُ عَنِ الزِّنَا قَالُوا حَرَامٌ حَرَّمَهُ اللَّهُ وَرَسُولُهُ فَقَالَ: (لِأَنْ يَزْنِيَ الرَّجُلُ بِعَشْرِ نِسْوَةٍ أيسرُ عَلَيْهِ مِنْ أَنْ يَزْنِيَ بِامْرَأَةِ جَارِهِ) وَسَأَلَهُمْ عَنِ السَّرِقَةِ قَالُوا حَرَامٌ حَرَّمَهَا اللَّهُ عَزَّ وَجَلَّ وَرَسُولُهُ فَقَالَ: (لِأَنْ يَسْرِقَ مِنْ عَشرَةِ أَهْلِ أَبْيَاتٍ أَيْسَرُ عَلَيْهِ مِنْ أَنْ يسرق من بيت جاره) .

১০৩. হযরত মিকদাদ ইবনুল আসওয়াদ (রা) বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা) তার সাহাবীগণকে ব্যভিচার এর ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করেন। তার বললেন, হারাম। আল্লাহ ও তার রাসূল তা হারাম করেছেন। রাসূলুল্লাহ (সা) বললেন, কোন ব্যক্তির দশজন নারীর সাথে ব্যভিচার করা তার প্রতিবেশী স্ত্রীর সাথে ব্যভিচার করার চেয়েও ছোট অপরাধ। এরপর রাসূলুল্লাহ (সা) তার সাহাবীগণকে চুরির ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করেন। তারা বললেন, হারাম। আল্লাহ ও তার রাসূল তা হারাম করেছেন। রাসূলুল্লাহ (সা) বললেন, কোন ব্যক্তির দশ ঘরে চুরি করা করা তার প্রতিবেশীর ঘরে চুরি করার চয়েও ছোট অপরাধ।-সহিহ

57- باب يبدأ بالجار

অনুচ্ছেদঃ ৫৭ (হাদিয়া) প্রতিবেশী থেকে শুরু করা

104 – عن ابن عمر رضي الله عنهما قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: (مَا زَالَ جِبْرِيلُ يُوصِينِي بِالْجَارِ حَتَّى ظننت أنه سيورثه)

১০৪.হযরত ইবনে উমর (রা) বর্ণনা করেন। রাসূলুল্লাহ (ষা) ইরশাদ করেন- জিবরাইল (আ) আমাকে প্রতিবেশীর ব্যাপারে বারংবার অসীয়ত করতে  থাকেন। এমনকি আমার ধারণা হয় যে, শীঘ্রই তিনি প্রতিবেশীকে ওয়ারিস করে দিবেন।– সহিহ

105 – عن عبد الله بن عمرو رضي الله عنهما، أَنَّهُ ذُبِحَت لَهُ شاةٌ فَجَعَلَ يَقُولُ لِغُلَامِهِ أَهْدَيْتَ لِجَارِنَا الْيَهُودِيِّ؟ أَهْدَيْتَ لِجَارِنَا الْيَهُودِيِّ؟ سَمِعْتُ رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول: (مَا زَالَ جِبْرِيلُ يُوصينى بِالْجَارِ حَتى ظَنَنتُ أنه سَيَورِثُه)

১০৫. হযরত আব্দুল্লাহ ইবন আমর (রা) থেকে বর্ণিত। তার জন্য একটি বকরী যবাহ করা হলো। তখন তিনি তার গুলামকে  বললেন, তুমি কি আমার ইহুদী প্রতিবেশী হাদিয়া দিয়েছ? (কেননা) আমি রাসূলুল্লাহ (সা)-কে বলতে শুনেছি, জিবরাইল (আ) আমাকে প্রতিবেশীর ব্যাপারে বারংবার অসীয়ত করতে থাকেন। এমনকি আমার ধারণা হয় যে, শীঘ্রই তিনি প্রতিবেশীকে ওয়ারিস করে দিবেন।– সহিহ

106 – عَنْ عَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا قَالَتْ: سَمِعْتُ رسول الله صلى الله عليه وسلم يَقُولُ: (مَا زَالَ جِبْرِيلُ يُوصِينِي بِالْجَارِ حَتَّى ظننت أنه ليورثه)

১০৬.হযরত আয়িশা (রা) রাসূলুল্লাহ (সা) থেকে বর্ণনা করেন। রাসূলুল্লাহ (ষা) ইরশাদ করেন- জিবরাইল (আ) আমাকে প্রতিবেশীর ব্যাপারে বারংবার অসীয়ত করতে থাকেন। এমনকি আমার ধারণা হয় যে, শীঘ্রই তিনি প্রতিবেশীকে ওয়ারিস করে দিবেন।– সহিহ

58- باب يهدى إلى أقربهم بابا

অনুচ্ছেদঃ৫৮ যেই প্রতিবেশী দরজার অধিক নিকটবর্তী তাকে হাদিয়া দেয়া

107 – عَنْ عَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا قَالَتْ: قُلْتُ يَا رَسُولَ اللَّهِ إِنَّ لِي جَارَيْنِ فَإِلَى أَيِّهِمَا أُهْدِي؟ ، قَالَ: (إِلَى أقربِهِما مِنْكِ بَابًا)

১০৭.হযরত আয়িশাহ (রা) বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, আমি বললাম, হে আল্লাহ রাসূল! আমার দুজন প্রতিবেশী আছে। তাদের মধ্যে কাকে হাদিয়া দিব? তিনি (সা)) বললেন, তাদের মধ্যে যার দরজা তোমার দরজার নিকটে।–সহিহ

108 – عَنْ عَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا قَالَتْ: قُلْتُ يَا رَسُولَ اللَّهِ إِنَّ لِي جَارَيْنِ فَإِلَى أَيِّهِمَا أُهْدِي؟

قَالَ: (إِلَى أَقْرَبِهِمَا مِنْكِ بَابًا)

১০৮.হযরত আয়িশাহ (রা) বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, আমি বললাম, হে আল্লাহ রাসূল! আমার দুজন প্রতিবেশী আছে। তাদের মধ্যে কাকে হাদিয়া দিব? তিনি (সা) বললেন, তাদের মধ্যে যার দরজা তোমার দরজার অতি নিকটে।–সহিহ

59- باب الأدنى فالأدنى من الجيران

অনুচ্ছেদঃ৫৯ প্রতিবেশীদের মধ্যে নিকট থেকে নিকটবর্তী যারা

109 –  عَنِ الْحَسَنِ أَنَّهُ سُئل عَنِ الْجَارِ؟ فَقَالَ: أَرْبَعِينَ دَارًا أَمَامَهُ وَأَرْبَعِينَ خَلْفَهُ وَأَرْبَعِينَ عَنْ يمينه وأربعين عن يساره

১০৯.হযরত হাসান (রা)-কে প্রতিবেশী সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলো। তিনি বললেন, সামনের ৪০ ঘর, পিছনের ৪০ ঘর, ডানের ৪০ ঘর এবং বামের ৪০ ঘর প্রতিবেশীর অন্তর্ভুক্ত।- হাসান

110 – عن أبي هريرة – رضي الله عنه – قَالَ: وَلَا يَبْدَأُ بِجَارِهِ الْأَقْصَى قَبْلَ الْأَدْنَى ولكن يبدأ بالأدنى قبل الأقصى

১১০.হযরত আবু হুরায়রা (রা) বলেন, নিকট প্রতিবেশীকে বাদ দিয়ে দূরবর্তী প্রতিবেশীকে হাদিয় দিবে না বরং নিকটবর্তী প্রতিবেশীকে দিয়ে শুরু করবে।–যয়ীফ

চলবে

 

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button
error: Content is protected !!