লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ এর মাহাত্ম ও ফযীলত

benefits of la hawla wala quwwata

কানযুল উম্মাল

কিতাবুল আযকার

হাওকালাহ (লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ)

1951 – ” ألا أدلك على كلمة من تحت العرش من كنز الجنة، تقول: لا حول ولا قوة إلا بالله، فيقول الله: أسلم عبدي واستسلم.

আমি কি তোমাদেরকে ঐ কালিমা বলব না, যা আরশের নিম্নস্থ জান্নাতের খাযানাহ হতে এসেছে। এটা হলো এই যে, তোমরা বলো- লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ। বান্দা যখন এই কালিমা বলে, তখন আল্লাহ তাআলা বলে, আমার বান্দা আমার নিকট আত্ম-সমর্পণ করেছে এবং আমার সামনে নিজের মাথা ঝুঁকিয়ে দিয়েছে।

1952 – “ألا أدلك على باب من أبواب الجنة، لا حول ولا قوة إلا بالله”. (حم ت ك عن قيس بن سعد بن عبادة) .

আমি কি তোমাদেরকে জান্নাতের দরজাসমূহের একটি দরজার কথা বলব না? তা হলো লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1953 – “استكثروا من قول لا حول ولا قوة إلا بالله، فإنها تدفع تسعة وتسعين بابا من الضرر أدناها الهم”. (عق عن جابر) .

লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ বেশী করে পাঠ করো। কেননা এটি ৯৯টি অনিষ্ট ও ক্ষতির দরজা বন্ধ করে দেয়। তনন্মধ্যে নিম্নতম হলো উদ্বেগ-উৎকন্ঠা, দুঃখ-দুশ্চিন্তা।

1954 – “كلام أهل السموات لا حول ولا قوة إلا بالله”. (خط عن أنس) .

আসমানবাসীদের কথা হলো লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ

1955 – “من أنعم الله عليه نعمة فأراد بقاءها فليكثر من قول لا حول ولا قوة إلا بالله”. (طب عن عقبة بن عامر)

যে ব্যক্তি আল্লাহর পক্ষ থেকে কোন নিআমত লাভ করেছে আর সে চায় যে এটি স্থায়ী হোক, তবে সে যেন লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ই্ল্লা বিল্লাহ বেশী করে পাঠ করে।

1956 – “لا حول ولا قوة إلا بالله دواء من تسعة وتسعين داء أيسرها الهم”. (ابن أبي الدنيا في الفرج عن أبي هريرة) .

লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ ৯৯ টি রোগের ওষুধ, তন্মধ্যে সহজটি হলো দুঃখ-দুশ্চিন্তা।

1957 – “أكثروا من قول لا حول ولا قوة إلا بالله فإنها من كنز الجنة”. (عد ع طب عن أبي أيوب) .

লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ বেশী করে পাঠ কর। কেননা তা হলো জান্নাতের খাযানাহ বা ভাণ্ডার।

1958 – “أكثروا من قول لا حول ولا قوة إلا بالله فإنها من كنوز الجنة”. (عد عن أبي هريرة) .

লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ বেশী করে পাঠ কর। কেননা তা হলো জান্নাতের ভাণ্ডার।

1959 – “أكثروا من غرس الجنة فإنها عذب ماؤها طيب ترابها، فأكثروا من غراسها لا حول ولا قوة إلا بالله”. (طب عن ابن عمر) .

বেশী করে জান্নাতে গাছ রোপণ কর। কেননা তার পানি সুমিষ্ট এবং মাটি উৎকৃষ্ট। অতএব লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ বেশি করে পাঠ করে সেথায় গাছ রোপণ কর।

1960 – “ألا أخبركم بتفسير قول لا حول ولا قوة إلا بالله لا حول عن معصية الله، إلا بعصمة الله، ولا قوة على طاعة الله إلا بعون الله هكذا أخبرني جبريل يا ابن أم عبد”. (ابن النجار عن ابن مسعود) .

১৯৬০. আমি কি তোমাদেরকে লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ-এর তাফসীর বলব না? তা হলো- আল্লাহর সাহায্য ব্যতীত আল্লাহর নাফরমানী ও গুনাহ থেকে বাঁচার কোন শক্তি নেই এবং আল্লাহর সাহায্য ব্যতীত আল্লাহরন আনুগত্য ও নেক আামল করার কোন শক্তি নেই। আমাকে জিবরাইল (আ) এটাই বলেছেন হে ইবনে উম্মে আব্দ।

1961 – “أكثروا من قول لا حول ولا قوة إلا بالله، فإنها تدفع تسعة وتسعين بابا من الضر أدناها الهم”. (طس عن جابر)

১৯৬১.লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ বেশী করে পাঠ কর। কেননা এটি ৯৯টি অনিষ্ট ও ক্ষতির দরজা বন্ধ করে দেয়। যার সর্বনিম্ন হলো উদ্বেগ-উৎকন্ঠা, দুশ্চিন্তা-পেরেশানী।

1962 – “أكثروا من قول لا حول ولا قوة إلا بالله فإنها من كنز الجنة ومن أكثر منه نظر الله إليه ومن نظر الله إليه فقد أصاب خير الدنيا والآخرة”. (ابن عساكر عن أبي بكر) .

১৯৬২.লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ বেশী করে পাঠ কর। কেননা তা হলো জান্নাতের ভাণ্ডার। আর যে তা বেশী করে পাঠ করবে, আল্লাহ তার প্রতি রহমতের দৃষ্টি দিবেন। আর যার প্রতি আল্লাহ রহমতের দৃষ্টি দিবেন, তার উভয় জগতের কল্যাণ নসীব হবে।

1963 – “ما على الأرض أحد يقول لا إله إلا الله والله أكبر ولا حول ولا قوة إلا بالله إلا كفرت عنه خطاياه ولو كانت مثل زبد البحر”. (حم ت عن ابن عمر) .

১৯৬৩.সমগ্র ধরণীতে এমন কোন বান্দা নেই, যে বলে লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ আর তার সমস্ত গুনাহ ক্ষমা করে না দেয়া হয়, যদিও তা সমুদ্রের ফেনা সমপরিমাণ হয়।

1964 – “يا أبا ذر ألا أدلك على كنز من كنوز الجنة لا حول ولا قوة إلا بالله”. (حم ت ن هـ حب عن أبي ذر) .

১৯৬৪. হে আবু যার! আমি কি তোমাকে জান্নাতের ভাণ্ডারসমূহের একটি ভাণ্ডার এর কথা বলব না? তা হলো লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1965 – “يا حازم أكثر من قول لا حول ولا قوة إلا بالله فإنها من كنوز الجنة”. (هـ عن حازم بن حرملة الأسلمي

১৯৬৫. হে হাযম! লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ বেশী করে পাঠ কর। কেননা তা হলো জান্নাতের ভাণ্ডার।

1966 – “يا عبد الله بن قيس ألا أدلك على كلمة هي كنز من كنوز الجنة لا حول ولا قوة إلا بالله”. (حم ق (عن أبي موسى)) .

১৯৬৬. হে আব্দুল্লাহ ইবনে কুবাইস! আমি কি তোমাকে এমন একটি কালিমার কথা বলব না? যা জান্নাতের ভাণ্ডারসমূহের মধ্য হতে একটি ভাণ্ডার। তা হলো লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

الإكمال

1967 – “أكثروا من ذكر لا حول ولا قوة إلا بالله، فإنها تدفع عن قائلها تسعة وتسعين بابا من الضر أدناها الهم”. (طس عن جابر) .

১৯৬৭. বেশী করে লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহর যিকির কর ।কেননা তা নিজের পাঠকারী থেকে ৯৯টি অনিষ্ট ও ক্ষতির দরজা বন্ধ বরে দেয়। যার সর্বনিম্ন হলো দুঃখ-দুশ্চিন্তা।

 1968 – “إن قول لا حول ولا قوة إلا بالله، تدفع عن قائلها تسعا وتسعين بابا أدناها الهم”. (ابن عساكر عن ابن عباس) .

১৯৬৮. লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ নিজের পাঠকারী থেকে ৯৯টি মুসীবতের দরজা বন্ধ বরে দেয়। যার সর্বনিম্ন হলো দুঃখ-দুশ্চিন্তা।

1969 – “من قال لا حول ولا قوة إلا بالله، كان دواء من تسعة وتسعين داء أيسرها الهم”. (ك عن أبي هريرة) .

১৯৬৯. যে ব্যক্তি লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ বললো, তা হলো তার জন্য ৯৯টি রোগের ওষুধ। যার সর্বনিম্ন হলো কষ্ট ও যাতনা।

1970 – “أكثروا من قول لا حول ولا قوة إلا بالله فإنه كنز من كنوز الجنة، وإن فيها شفاء من تسعة وتسعين داء أولها الهم”. (ميسرة بن علي في مشيخته عن بهز بن حكيم عن أبيه عن جده)

১৯৭০. বেশী করে লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ পাঠ কর। কেননা তা হলো জান্নাতের ভাণ্ডারসমূহের মধ্য হতে একটি ভাণ্ডার। আর এর মধ্যে ৯৯টি রোগের ওষুধ আছে। যার মধ্যে প্রথমটি হলো কষ্ট ও যাতনা। 

1971 – “لا حول ولا قوة إلا بالله كنز من كنوز الجنة، من قالها أذهب الله عنه سبعين بابا من الشر أدناهم الهم. ” (طب وابن عساكر عن بهز بن حكيم عن أبيه عن جده).

১৯৭১. লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ই্ল্লা বিল্লাহ জান্নাতের ভাণ্ডারসমূহের একটি ভাণ্ডার। যে তা পাঠ করবে আল্লাহ তার সত্তরটি অনিষ্ট দূর করে দিবেন। যার সর্বনিম্ন হলো দুঃখ-দুশ্ন্তিা।

1972 – “إن الله عز وجل ليصدق عبده إذا قال لا إله إلا الله، وإذا قال لا إله إلا الله، وإذا قال لا حول ولا قوة إلا بالله لم تمسه نار”. (ك في تاريخه وإسمعيل بن عبد الغافر الفارسي في الأربعين والديلمي عن أبي هريرة).

১৯৭২. যখন বান্দা লা্ ইলাহা ইল্লাহ বলে, তখন আল্লাহ তার সত্যায়ন করে বলেন, আমার বান্দা সত্য বলেছে। আর যখন বান্দা লা ইলাহা লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ বলে তখন তাকে জাহান্নামের আগুন স্পর্শ করবে না।

1973 – “ألا أدلك على باب من الجنة لا حول ولا قوة إلا بالله”. (حم ت) حسن صحيح وابن سعد (ك) طب هب عن قيس بن سعد بن عبادة) (حم) عن معاذ) .

১৯৭৩. আমি কি তোমাদেরকে জান্নাতের দরজার কথা বলব না? তা হলো লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1974 – “لما أسري بي مررت بإبراهيم فقال لجبرئيل من هذا فرحب بي وسلم علي وقال: مر أمتك يكثروا من غراس الجنة، فإن تربها (في المنتخب تربتها) طيبة وأرضها واسعة، قلت وما غراس الجنة؟ قال: لا حول ولا قوة إلا بالله”. (هب عن أبي أيوب) .

১৯৭৪. যখন আমাকে আসমানের দিকে ভ্রমণ করানো হয় তখন ইবারাহীম (আ) এর পাশ দিয়ে অতিক্রম হয়। তখন তিনি  জিবরাইল (আ)-কে জিজ্ঞাসা করলেন, ইনি কে এবং আমাকে মারহাবা ও সালাম বললেন। আর বললেন, আপনার উম্মতকে বলে দিবেন যে, জান্নাতে বেশী করে গাছ লাগাতে। কেননা এর মাটি খুব উৎকৃষ্ট আর যমীন প্রশস্ত। আমি জিজ্ঞাসা করলাম জান্নাতের গাছ কি? তিনি বললেন, লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1975 – “ليلة أسري بي مررت بإبراهيم فقال: يا جبرئيل من هذا معك؟ قال: هذا محمد فسلم علي ورحب بي وقال: مر أمتك أن يكثروا من غرس الجنة فإن تربها (2) طيبة وأرضها واسعة، قلت: وما غراس الجنة؟ قال: لا حول ولا قوة إلا بالله”. (حم ع) حب طب (ص عن) (أبي أيوب) .

১৯৭৫. মিরাজের রাতে যখন আমাকে আসমানের দিকে ভ্রমণ করানো হলো তখন ইবারাহীম (আ) এর পাশ দিয়ে অতিক্রম হয়। তখন তিনি  জিবরাইল (আ)-কে জিজ্ঞাসা করলেন, হে জিবরাইল! তোমার সাথে ইনি কে? তিনি বললেন, ইনি মুহাম্মদ (সা)। ইবরাহিম (আ) বললেন, মারহাবা এবং আমাকে সালাম করলেন। আর বললেন, আপনার উম্মতকে বলে দিবেন যে, জান্নাতে বেশী করে গাছ লাগাতে। কেননা এর মাটি খুব উৎকৃষ্ট আর যমীন প্রশস্ত। আমি জিজ্ঞাসা করলাম জান্নাতের গাছ কি? তিনি বললেন, লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1976 – “مررت ليلة أسري بي على إبراهيم فقال: لجبرئيل من معك؟ قال: هذا محمد، فقال: يا محمد مر أمتك أن يكثروا من غراس الجنة فإن تربها طيبة وأرضها واسعة قلت: وما غراس الجنة قال: لا حول ولا قوة إلا بالله”. (حب عن أبي أيوب) .

১৯৭৬. যেই রাতে আমাকে (আসমানে) ভ্রমণ করানো হয়, সে সময় ইবারাহীম (আ) এর পাশ দিয়ে অতিক্রম হয়। তখন তিনি  জিবরাইল (আ) কে জিজ্ঞাসা করলেন, তোমার সাথে কে? তিনি বললেন, ইনি মুহাম্মদ (সা)। ইবরাহিম (আ) বললেন, আপনার উম্মতকে বলে দিবেন যে, জান্নাতে বেশী করে গাছ লাগাতে। কেননা এর মাটি খুব উৎকৃষ্ট আর যমীন প্রশস্ত। আমি জিজ্ঞাসা করলাম জান্নাতের গাছ কি? তিনি বললেন, লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1977 – “ألا أدلك على كنز من كنوز الجنة، لا حول ولا قوة إلا بالله، ولا ملجأ من الله إلا إليه”. (هب عن أبي هريرة) .

১৯৭৭.আমি কি তোমাকে জান্নাতের ভাণ্ডারসমূহের একটি ভাণ্ডার এর কথা বলব না? তা হলো লা ইলাহা লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহি ওয়ালা মালজাআ মিনাল্লাহি ইল্লা ইলাইহি।

1978 – “ألا أدلك على كنز من كنوز الجنة لا حول ولا قوة إلا بالله”. (طب عن زيد بن إسحاق .

১৯৭৮.আমি কি তোমাকে জান্নাতের ভাণ্ডারসমূহের একটি ভাণ্ডার এর কথা বলব না? তা হলো লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1979 – “ألا أدلكم على كنز من كنوز الجنة لا حول ولا قوة إلا بالله”. (طب عن معاذ) .

১৯৭৯.আমি কি তোমাকে জান্নাতের ভাণ্ডারসমূহের একটি ভাণ্ডার এর কথা বলব না? তা হলো লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1980 – “ألا أدلكم على كنز من كنوز الجنة، تكثرون من لا حول ولا قوة إلا بالله”. (عبد بن حميد طب عن زيد بن ثابت) .

১৯৮০.আমি কি তোমাকে জান্নাতের ভাণ্ডারসমূহের একটি ভাণ্ডার এর কথা বলব না? তা হলো এই যে, তুমি বেশী করে পাঠ কর লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1981 – “ألا أعلمك يا أبا أيوب كلمة من كنز الجنة، أكثر من قول لا حول ولا قوة إلا بالله “. (طب عن أبي أيوب) .

১৯৮১ হে আবু আইয়ুব! আমি কি তোমাকে এমন একটি কালিমার কথা বলব না? যা জান্নাতের ভাণ্ডারসমূহের একটি ভাণ্ডার। আর তা হলো এই যে, বেশী করে পাঠ কর লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।

1982 – “من أراد كنز الجنة فعليه بلا حول ولا قوة إلا بالله”. (طب وابن النجار عن فضالة بن عبيد) .

১৯৮২ যে জান্নাতের ভাণ্ডার পেতে চায় তার জন্য লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ পাঠ করা আবশ্যক।

1983 – “ما نزل من السماء ملك ولا صعد إلى السماء ملك، حتى يقول لا حول ولا قوة إلا بالله”. (الديلمي من طريق صفوان بن سليم عن أنس بن مالك عن أبي بكر الصديق عن أبي هريرة) .

১৯৮৩. লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ পাঠ করা ব্যতীত না কোন ফেরেশতা আসমান থেকে নিচে নামতে পারে আর না কোন ফেরেশতা আসমানের উপরে উঠতে পারে।

1984 – “يا معاذ تدري ما تفسير لا حول ولا قوة إلا بالله لا حول عن معصية الله إلا بقوة الله، ولا قوة على طاعة الله إلا بعون الله، يا معاذ هكذا حدثني جبريل عن رب العزة”. (الديلمي عن ابن مسعود) .

১৯৮৪. হে মুয়ায! আমি কি তোমাকে লা হাউলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ এর তাফসীর বলব না? তা হলো- আল্লাহর সাহায্য ব্যতীত আল্লাহর নাফরমানী থেকে বাঁচার কোন শক্তি নেই এবং আল্লাহর সাহায্য ব্যতীত আল্লাহর আনুগত্য করার কোন শক্তি নেই। আমাকে জিবরাইল (আ) এটাই বলেছেন হে মুয়ায।

 

 

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
error: Content is protected !!